মূল পাতা

মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০১৫
তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্থানের শাসক ও শোষক গোষ্ঠী শত দমন,নিপিরন ও নির্যাতনের দীর্ঘ কালো রজনীর চির অবসান ঘটিয়ে ১৯৭১ সালের ২৫ শে মার্চের কালো রাত্রীর জঘণ্য নরহত্যা চলাকালীন রাত ১২.০০ ঘটিকাউত্তর্নের পরপরই স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে জাতী যে স্বাধীনতা অর্জন করেন তারই ধারাবাহিক মাহত্ব্য সমুন্বত রাখার লক্ষ্যে জাতীর ভবিষৎ শ্রোষ্ঠা কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মাঝে- শিশুতোষ চিত্রাকন ও সাধারন জ্ঞ্যন প্রতিযোগিতা, ছাত্রদের ক্রিকেট ও ছাত্রীদের হ্যান্ড বল খেলার আয়োজন করা হয়। এবং বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরনের মধ্যেদিয়ে উদযাপিত হয় “বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ” আয়োজিত ২৬শে মার্চ ২০১৫ এর “মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস”। কোরান তেলওয়াতের মধ্যেদিয়ে অনুষ্ঠানের সুচনা হয় মহান দিবসের শুভ উদযাপন। স্বাধীনতা দিবসের উপর নির্মীত আলোকচিত্র প্রদর্শন ও শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। উপস্থিত সকলের উদ্দেশ্যে দিবসটির উপর তাৎপর্যপূর্ণ বক্তব্য রাখেন প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ কর্ণেল মোঃ মাহবুবুর রহমান এবং তাঁর আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘোষণার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠান কতৃক সফলভাভে উদযাপিত হয় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস-২০১৫।
26 march 2015
…….
IMG_4131
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৯৬ তম জন্ম দিবস ও জাতীয় শিশু দিবস ২০১৫
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৯৬ তম জন্ম দিবস ও জাতীয় শিশু দিবস ২০১৫ উদযাপনে “বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ” আয়োজিত অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন। প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ কর্ণেল মো: মাহবুবুর রহমান। যথাযোগ্য ভাব গাম্ভির্যের সাথে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। জাতির জনকের উপর নির্মীত বিশেষ আলোকচিত্র প্রদর্শন করা হয়। সংস্লিষ্ঠ বিষয়ে চিত্রাংকন ও রচনা প্রতিযোগিতায় শিক্ষার্থীরা উৎসাহ ও উদ্দীপনার সাথে অংশ গ্রহন করে। বিজয়ীদের মাঝে অধ্যক্ষ মহোদয় পুরুস্কার বিতরন করেন এবং দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে বক্তব্য উপস্থাপন করেন।
IMG_23708
মহান শহীদ দিবস ও অন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’১৫
নব-নির্মিত শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে নতুন আঙ্গিকে যথাযোগ্য মর্যাদায় “মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস”-২০১৫ উদযাপন করা হয়। প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষসহ, শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও সংশ্লিষ্ট সকলে প্রভাতফেরিতে অংশ গ্রহন শেষে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন। অতপর শিক্ষার্থীরা শহীদ মিনার পাদদেশে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক বিষয়ে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহন করে। অধ্যক্ষ মহোদয় বিজয়ীদের মধ্য পুরস্কার বিতরন শেষে শহীদ দিবসের ঐতিহাসিক তাৎপর্য ও গুরুত্ব তাঁর বক্তব্যে শিক্ষার্থীদের মাঝে তুলে ধরেণ।
IMG_1846
৩২ তম বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ২০১৫

৭ ই-মার্চ ২০১৫ রোজ শনিবার বেলা ১৪০০ ঘটিকায় “বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ” এর বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা-২০১৫ অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রতিষ্ঠানের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও কমান্ডিং ১১ পদাতিক ডিভিশন এবং এরিয়া কমান্ডার, বগুড়া এরিয়া মেজর জেনারেল এ কে এম আব্দুল্লাহিল বাকী এনডিইউ, পিএসসি বেলা ১৪০০ ঘটিকায় প্রধান অতিথির আসন অলংকৃত করেন ও ১৪১০ ঘটিকায় শুভ উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে ৭ ই-মার্চ অনুষ্ঠিত হয় “বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ” এর ৩২তম বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা-২০১৫ । চূড়ান্ত দিনের প্রতিযোগিতা শেষে “জাগ্রত বাংলাদেশ” শিরোনামে শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহনে মনোজ্ঞ গ্রুপ ডিসপ্লে উপস্থিত সকলে উপভোগ করেন। প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মিজানুর রহমান শামীম বিপি,পিএসসি ও অধ্যক্ষ কর্ণেল মো: মাহবুবুর রহমান পিএসসি’র উপস্থিতিতে প্রধান অতিথি বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরন করেন। প্রতিষ্ঠানের চারটি হাউজের মধ্যে শের-ই-বাংলা হাউজ চ্যাম্পিয়ান এবং নজরুল হাউজ রানার্সআপ হয়ে ট্রফি গ্রহন করে। প্রধান অতিথি শিক্ষার্থীসহ সকলের মাঝে তাৎপর্যপূর্ণ ও দিক নির্দেশনামূলক বক্তব্য প্রদান শেষে সকলকে ধন্যবাদ অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষনা করেন ও আনুষ্ঠানিকভাবে প্রস্থান করেন।

b

BCPSC Main gate
সেনানিবাসে কর্মরত সেনাসদস্যদের সন্তান-সন্ততি ও পোষ্যদের যুগোপযোগী শিক্ষা প্রদানের জন্য অন্যান্য সেনানিবাসের মতো বগুড়া সেনানিবাসে ‘ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ’ প্রতিষ্ঠা করা হয়। সেনানিবাসমূহ মূল শহর হতে দূরবর্তী অঞ্চলে অবস্থিত হওয়ায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে এমন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হয়। সেনাবাহিনীর সদস্যদের এই মৌলিক প্রয়োজনীয়তা পূরণের পাশাপাশি সেনানিবাস সংলগ্ন অঞ্চলে বসবাসকারী মানুষের জন্য আধুনিক ও যুগোপযোগী শিক্ষার সুযোগ তৈরি করে দেশের শিক্ষা কার্যক্রমে ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজসমূহ বর্তমানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। ‘বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ’ বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রতিষ্ঠিত ও পরিচালিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে অন্যতম। অর্থনৈতিকভাবে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চল তুলনামূলক পশ্চাৎপদ অঞ্চল হিসেবে বিবেচিত। এই অঞ্চলের মানুষের জন্য মানসম্পন্ন শিক্ষার পরিবেশ তৈরিতে প্রতিষ্ঠানটি তার সূচনালগ্ন থেকে সক্রিয় রয়েছে।